Chat with us, powered by LiveChat

সিবিকের গল্প : বাংলাদেশ থেকে পাতিসিয়ার একটি অসাধারণ মুদিখানা

একটি চমৎকার ভ্রমন এবং সিবিকের মুদিখানা পরিদরশন ।

এথেন্সের পুরো পৃথিবী পাতিসিয়ার একটি মুদিখানায় ।

পাতিসিয়া এথেন্সের একটি প্রানবন্ত এবং বিশেষ এলাকা । এখানের রাস্তাঘাটে অনেক দোকানপাট আছে , লোকজন তাদের কাজকর্মে যায় , কেনাকাটা করে ,ঘুরে বেড়ায় এবং দিন শেষে তাদের বাড়ি ফিরে যায় । স্কিয়াথু একটি ব্যাস্ত রাস্তা যেটা ট্রেন স্টেশনের পাশে অবস্থিত , লোকজনে ভরপুর এবং গতিশীল , সেখানেই মুদিদনটি অবস্থিত যেখানে সিবিক কাজ করে । “ আমি এথেন্সে এসেছি বাংলাদেশের ঢাকা শহর থেকে এবং আমার বয়স ৩৫ বছর ” সিবিক আমাদের বলে , যে গত দশ বছর যাবত এথেন্সে বসবাস করে এবং কর্মরত আছে । “ লেখাপড়া শেষ করার পর আমার স্বপ্ন ছিল একটি ভালো কাজ করার । আমার দেশে সেরকম সুযোগ সুবিধা পাইনি তাই গ্রীসে এসে নতুন করে শুরু করার সিদান্ত নেই ” আমাদের বলেন ।

মুদিদোকানের তাকে সব ধরনের সামগ্রি পাওয়া যায় । নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রি ছাড়াও সেখানে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী পণ্য এবং খাদ্য পাওয়া যায় । তাখিনি , সিমের বিচি, ডাল এবং আরও অনেক অনেক দ্রব্য । এই সবকিছু একটি বিস্ময়কর পৃথিবী সৃষ্টি করে , সুন্দর রং এবং মনমাতানো সুগন্ধে ভরপুর । যারা সেখানে কাজ করে তারা সেখানে চাল এবং তাদের দেশের বিভিন্ন পণ্য ক্রেতাদের সরবরাহ করেন । অভিবাসী ব্যাস্ত যারা নিজেদের ব্যাবসা পরিচালনা করেন , সিবিকের মুদিদোকানের মত, অভিবাসী সমর্থন অর্গানাইজেশন ( OYM ) তাদের সহায়তা করে , যারা তাদের নিজের কিছু সৃষ্টি করার শক্তি খুজে পায় ।

সিবিক আনন্দের শহিদ ও হাসিমুখে আমাদের সাথে কথা বলে এবং তার গল্প ও অভিজ্ঞতার কথা বর্ণনা করে । “ অনেক সমস্যা সম্মুখীন হওয়া সত্ত্বেও আমার স্বপ্ন পুরন করতে বাধাগ্রস্ত হয়নি । কখনই আমি প্রত্যাশা হারাইনি এবং নিরাশ হইনি । প্রথম যখন গ্রীসে আসি অনেক দিন যাবত কাজের খোজ করি , শেষ পর্যন্ত সার্থক হই। মুদিদোকানে কাজ করার সময় আমার মনে হয় আমি আমর নিজের দেশে আছি,” যোগ করলেন । সিকিব এখনও বিয়েশাদী করে সংসার করে নাই , তবে ভবিষ্যতে সংসার করার ইচ্ছে পোষণ করে । দোকানের ব্যাবসা ভালো চলে । মুদিদোকানের অনেক ক্রেতা আছে যারা তাদের সব নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী সেখান থেকে ক্রয় করেন । এছাড়াও দোকানের গ্রীক ক্রেতাও আছে যারা তাদের স্বাদ এবং পণ্য ভালবাসে যা অনেক দুর থেকে সযত্নে এবং সতর্কতার সাথে এদেশে পৌচেছে । একারনে অনেক গ্রীক প্রায়ই এদের দোকানে আসে এবং তাদের পরিবারের জন্য পূর্বের স্বাদ এবং সুগন্ধ যুক্ত পণ্য ক্রয় করেন । আমরা মনে করি , দোকানটি পরিদর্শন করলে আপনাদেরও ভালো লাগবে ।

Scroll to top